শেখ হাসিনা সরকারের আমলে কৃষি ক্ষেত্রে অভতুপুর্ব উন্নয়ন হয়েছে- কৃষিমন্ত্র

প্রকাশিতঃ ৫:০৯ অপরাহ্ণ | মার্চ ১৫, ২০২১

আমরা এখন অন্য দেশকে খাদ্য সহায়তা করি-কৃষিমন্ত্রী

মোঃ মঈন উদ্দীন চিশতী, দিনাজপুরঃ

কৃষি মন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক বলেন,আমরা আর ভিক্ষুকের জাতি না,বাংলাদেশ আর ভিক্ষুকদের দেশ নয়।আমরা এখন স্বয়ংসম্পূর্ণ। আমরা এখন অন্য দেশকে খাদ্য সহায়তা করি। জন-নেত্রী শেখ হাসিনা সরকারের আমলে কৃষি ক্ষেত্রে অভতুপুর্ব উন্নয়ন হয়েছে। কৃষক তার উৎপাদিত ফসলের সঠিক মূল্য পাচ্ছেন। আমরা কৃষিকে বাণিজ্য করণ চাই। বর্তমান সরকার কৃষি বান্ধব সরকার।অর্থনীতির মূল চালিকা শক্তি কৃষিকে আধুনিকায়নের জন্যে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

সোমবার (১৫ই মার্চ) দিনাজপুরে কৃষি প্রযুক্তি প্রদর্শন মেলা’২০২১ এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি’র বক্তব্যে কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক এসব কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন,কৃষি উন্নয়নের মাঝেই দেশের সামগ্রিক উন্নয়ন নিহিত রয়েছে।বাংলাদেশ সমৃদ্ধির অগ্রযাত্রায় যারা বিরোধিতা করছে তারা পাকিস্তানের দোসর। একটি মহল দেশকে অস্থিতিশীল করতে চায়। এজন্যই প্রতিবেশী বন্ধু রাষ্ট্রের সঙ্গে সম্পর্কের অবনতি ঘটানোর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। ধর্মকে ব্যবহার করে ভারত বিরোধী প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছে। ইতিহাসেরও বিকৃতি ঘটাচ্ছে।

বাংলাদেশ গম ও ভুট্টা গবেষণা ইন্সটিটিউটের মহা পরিচালক ড.মো.এছরাইল হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন, অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি, বাংলাদেশ কৃষি মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো.মেজবাহুল ইসলাম,সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল,বাংলাদেশ কৃষি ও খাদ্য শিল্প কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান আরিফুর রহমান অপু,বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন-বিএডিসি’র চেয়ারম্যান ড.অমিতাভ সরকার ও বরেন্দ্র উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান আকরাম হোসেন চৌধুরী।

অনুষ্ঠানে কৃষি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ড. কমলা রঞ্জন দাস,বাংলাদেশ গম ও ভুট্টা গবেষণা ইন্সটিটিউটের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. আবু জামান সরকার,কৃষক দবিরুল ইসলামসহ অন্যরা বক্তব্য রাখেন।

কৃষক এবং কৃষিকে জানতে কৃষি মন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক তাঁর বক্তব্যে স্বাধীনতার স্থপতি বিশ্ববন্দিত মহানায়ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ইতিহাস ও মহান নেতার জীবনী পড়ার জন্য সকলের প্রতি আহ্বান জানান।

বাংলাদেশ গম ও ভুট্টা গবেষণা ইন্সটিটিউট আয়োজিত চার দিনব্যাপী কৃষি প্রযুক্তি প্রদর্শন মেলায় ২০টি স্টল বসেছে। স্টলগুলোতে বিভিন্ন কৃষি প্রযুক্তি যন্ত্র,মেশিন ছাড়াও গম ও ভুট্টার খাদ্য,পণ্য স্থান পেয়েছে।

এর আগে মন্ত্রী বিএডিসির নশিপুর ফার্ম এবং পরে বীরগঞ্জ উপজেলার শীতলাই গ্রামে সমলয় চাষাবাদ ও সদরপুর হর্টিকালচার সেন্টারে বিভিন্ন মাতৃগাছের জার্মপ্লাজমা কার্যক্রম পরিদর্শন করেন।